আন্তর্জাতিক বাংলাদেশ

প্লীহা রোগের চিকিৎসা করুণ ।

প্লীহা রোগের চিকিৎসা করুণ

 

 

প্লীহার কারণ ও লক্ষণ।—জরােগ অধিক দিন পর্যন্ত শরীরে অবস্থান করিতে পারিলে, ম্যালেরিয়া জ্বর হইলে, অথবা ম্যালেরিয়া দূষিত স্থানেবাস করিলে, কিংবা মধুর-স্নিগ্ধাদি আহার জন্য রক্ত অতিমাত্র বর্ধিত হইলে, প্লীহা বৰ্ধিত হইয়া থাকে। এতদ্ভিন্ন অতিরিক্ত ভােজনের পর কোন দ্রুত

কবিরাজি শিক্ষা।

যানাদিতে গমন বা ব্যায়ামাদি পরিশ্রমজনক কাৰ্য্য করিলেও প্লীহা স্বস্থানচ্যুত হইয়া বর্ধিত হয়। উদরের বামপার্শ্বে উর্ধদিকে প্লাহ। অবস্থিত থেকে। অবিকৃত অবস্থায় হস্তদ্বারা তাহা অনুভব করা যায় না; কিন্তু বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হইলে কুক্ষির বামপার্শ্বে হস্তদ্বারা অনায়াসে অনুভব করিতে পারা যায়

 

; : এই রােগে.সৰ্ব্বদাই মৃদু এবং প্রত্যহই কোন সময়ে সেই জবর বৃদ্ধি, অথবা একদিন অন্তর কম্প ও অধিক এর প্রকাশিত হয়। প্লীহা অধিক বৃদ্ধি পাইলে প্লীহার স্থানে বেদনা,কামড়ানি বা জ্বালা, কোষ্ঠবদ্ধতা, অল্পমূত্র বা রক্তবর্ণ মূত্র, শ্বাস, কাস, অগ্নিমান্দ্য, শরীরের অবসন্নতা, কৃশতা, দুৰ্বলতা, বিবর্ণতা, পিপাসা, বমন, মুখের বিরসতা,চক্ষু, হস্তাঙ্গুলি ও ওষ্ঠ প্রভৃতি স্থানে রক্তহীনতা, অন্ধকার দর্শন ও মূদ্ধ প্রতি লক্ষণ প্রকাশ পাইয়া থাকে।

 

 

অন্য পোস্টঃ আপনার কি বাতব্যাধি আছে, তাহলে খুব সহজেই সমাধান করোন। কবিরাজি শিক্ষায়

 

 

কষ্টসাধ্য প্লীহার লক্ষণ। প্লীহা অত্যন্ত বর্ধিত হইয়া রােগ কষ্ট-সাধ্য হইলে, নাসিকা ও দন্তমাড়ী হইতে রক্তস্রাব, অথবা বক্তবমন, বক্তভেদ,উদরাময়, দন্তৰেষ্টে ক্ষত, পদয়ে ও চক্ষুয়ে অথবা সর্বাঙ্গে শোথ, পাণ্ডু ও কামলা প্রভৃতি লক্ষণ লক্ষিত হয়। এই সমস্ত লক্ষণ প্রকাশ পাইলে, আরােগ্যের আশা অল্প। প্লীহা অতিরিক্ত বর্ধিত হইয়া উদরের বৃদ্ধিসাধন করিলে, তাহাকে প্লীহােদর কহে। উদরবােগ-প্রসঙ্গে ইহার বিষয় বিস্তৃতরূপে লিখিত হইবে ।প্লীহার দোষনিয়।প্লীহারােগে মলবন্ধতা, বায়ুৰ উৰ্দ্ধগমন ও বেদনা অধিক থাকিলে—বায়ুর আধিক্য; পিপাসা, জ্বর ও মূৰ্ছা থাকিলে,—পিত্তের আধিক্য; এবং প্লীহার অধিক কঠিনতা, শরীরের • গুরুতা ও অরুচি থাকিলে শ্লেষ্মর আধিক্য বুঝিতে হইবে। রক্তের

 

 

আধিক্য থাকিলে পিত্তাধিক্যের লক্ষণ-সমূহ এবং তদপেক্ষাও অধিকতর তৃঞ্চা হইয়া থাকে। তিন দোষের আধিক্য থাকিলে, ঐ সমস্ত লক্ষণ মিলিতভাবে লক্ষিত হয়।চিকিৎস।প্লীহারােগে যাহাতে রােগীর প্রত্যহ কোষ্ঠ পরিষ্কার হয়,প্রথমে তাহারই উপায় বিধান করা আবশ্যক। পুরাতন গুড় ও হরীতকীর চুর্ণ  সমভাগে অথবা বিটলবণ ও হরীতকীচুৰ্ণ সমানভাগে মিশ্রিত করিয়া রােগের ওরােগীর অবস্থানুসারে মাত্রা বিবেচনা পূৰ্ব্বক গরমজলের সহিত সেবন করাইলে,

 

 

আরো পড়ুনঃক্রিমিরোগ থেকে বাচার উপাই

 

 

প্লীহা ও যকৃৎ উভয় রােগের শান্তি হয়। পিপুল-প্লীহারােগের একটা উত্তম ঔষধ। ২টা পিপুল জলের সহিত বাটিয়া তাহাই সেবন করাইলে, অথবা পুরাতন গুড়ের সহিত মিশ্রিত করাইয়া সেবন করাইলে প্লীহার বিশেষ উপকার হয়। তাল,ফুল (তালজটা) একটা হাঁড়িতে রাখিয়া, তাহার উপর শরা আচ্ছাদন দিয়া অগ্নি-জালে দগ্ধ করিতে হইবে; সেই ভস্ম পুরাতন গুড়ের সহিত উপযুক্ত মাত্রায় সেবন করাইলেও প্লীহা প্রশমিত হয়। হিন্দু, ঠ, পিপুল, মরিচ, কুড়, যৰক্ষার ও সৈন্ধবলবণ ইহাদের সমভাগ চূর্ণ একত্র নেবুর রসের সহিত মাড়ি, • দুই আনা হইতে । চারি আনা পর্যন্ত মাত্রায় প্রত্যহ সেবন করাইবে। যমানী,চিতামুল, যবক্ষার, পিপুলমূল, পিপুল ও দন্তমূল এই সকল প্রকার সমভাগ চূর্ণ

 

 

অন্ধতােলা মাত্রায় উষ্ণল, দধুির আত, সুরা বা আসব অঙ্গপালের সহিতসেবন করাইবে। চিতামুল পেষণ করিয়া ১ একরতি প্রমাণ বৃটিকা করিবে, এবং ঐ বটিকা তিনটী, এফখও পাকা কলার মধ্যে পূরিষ্যা

 

 

সেবন করাইবে। চিতমুল,পাকা আকন্দপাতা, অথবা ধাইফুচুৰ্ণ পুরাতন গুড়ের সহিত সেবন করাইবে।লণ্ডন, পিপুল ও হরীতকী ভক্ষণ এবং গােমূত্র পান করাইলেও, প্লীহবােগ প্রশমিত হয়। শরপুঙ্খ বাটিয়া ॥ অৰ্ধতােলা মাত্রায় ঘােলসহ সেবন করাইলে, প্লীহার | উপশম হয়। শঙ্খনাভির চূর্ণ ॥• অন্ধতােলা গোড়ানেবু র রসের সহিত সেবনকরাইলে, কুৰ্ম্মসমানপ্লীহা প্রশমিত হয়। সমুদ্রজাত ঝিনুকের ভস্ম প্লীহরােগ-নাশক। দেবদারু, সৈন্ধবলবণ ও গন্ধক এই সকল দ্রব সমভাগে একত্র ভস্মকরিয়া সেবন করাইলে, প্লীহা, যকৃৎ ও

 

অগ্ৰমাংসয়ােগ বিনষ্ট হয়। রােহিতক( রয়না) ও হরীতকীর কাথসহ পিপুলচূর্ণ • দুই আনা মিশ্রিত করিয়া সেবনকরাইবে। শালপাণী, চাকুলে, বৃহতী, কণ্টকারী, গােক্ষুর, হরীতকী ও রোহিতকছালের কাথ প্রস্তুত করিয়া সেবন করাইবে। নিদিপ্তিকাদি পাচনও এঅবস্থায় ব্যবস্থয়। এতদ্ভিন্ন মাণকাদি গুড়িকা, বৃহস্মাণকাদি গুড়িকা, গুড়-পিপ্পলী, অভয়া লবণ, মহামৃত্যুঞ্জয় লৌহ, বৃহল্লোকনাথ বস প্রভৃতি ঔষধওবিবেচনাপূর্বক প্রয়ােগ করিতে হয়। প্লীহার সহিত শ্লেষ্মসংসৃষ্ট অর না থাকিলেচিত্রকঘূহ প্রভৃতি ঘৃত সেবন করান যায়।

 

রােহিতকষ্টি প্লীহাদি রোগে বিশেষ উপকারী

 

আর প্রবল থাকিলে বা হঠাৎ প্রবল হইয়া উঠিলে, এই সমস্ত ঔষধের মধ্যে।যে সকল ঔষধ জ্বরেরও উপকারক, সেই সকল ঔষধ এবং জ্বরের ঔষধ মিলিত ভাবে প্রয়োগ করিবে। আবশ্যক হইলে, প্লীহার ঔষধ বন্ধ করিয়া কেবল জ্বরের চিকিৎসাই সে সময়ে করা যাইতে পারে। জ্বর কম হইলে, পুনরায় প্লীহর ঔষধ প্রয়ােগ করা উচিত।জীর্ণপ্লীহরােগে কর্তব্য।-জীর্ণপ্লীহরােগে বিরেচক ঔষধ প্রয়ােগ করিবে না; যেহেতু দৈবাৎ তাহাতে উদরাময় হইলে, তাহা আরােগ্য হওয়া কঠিন হয়। উদরাময় হইলে, পুটপাকের বিষমজরান্তক লৌহ প্রভৃতি উৎকৃষ্ট ঔষধ প্রয়ােগ

 

করিবে। রক্তামাশয়, শােথ, বা পাও ও কামলা প্রভৃতি পীড়া | ইহার সহিত মিলিত হইলে, সেই সেই রােগনাশক ঔষধ মিশ্রিতভাবে ব্যবস্থা করিবে। প্লীহরগ গ্রহণীয়ােগের সহিত মিলিত হইলে, দুশ্চিকিত হইয়া উঠে।সেই অবস্থায় চিত্ৰকাদি বৃত এবং গ্রহণীরােগােক্ত কনকারি ও অভয়ারিপ্রভৃতি ঔষধ প্রয়ােগ করা আবশ্যক।প্লীহায় মুখক্ষত-চিকিৎসা।—মুখমধ্যে ক্ষত হইলে, খদিরাদি বটিকা জলের সহিত গুলিয়া ক্ষতস্থানে লাগাইবে। বালছাল, বকুলছাল, জামছাল,গাছাল ও পেয়ারার পাতা, সিদ্ধ করিয়া এবং তাহাতে ফটকিরির চূর্ণ মিশ্রিত করিয়া গরম থাকিতে থাকিতে সেই জলদ্বারা কুল্লী করিলে, মুখক্ষতের বিশেষ উপশম হয়।

 

https://usabcnews.com/%e0%a6%86%e0%a6%aa%e0%a6%a8%e0%a6%be%e0%a6%b0-%e0%a6%95%e0%a6%bf-%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a6%a4%e0%a6%ac%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%a7%e0%a6%bf-%e0%a6%86%e0%a6%9b%e0%a7%87-%e0%a6%a4%e0%a6%be/

 

বেদনা চিকিৎসা।—প্লীহার স্থানে বেদনা থাকিলে, বন-আদা বাটিয়া তাহার প্রলেপ দিবে, এবং গোমূত্র গরম করিয়া তাহার অথবাগরমজলের স্বেদ দিবে। অল্প চাপ দিয়া ফ্ল্যানেল উদরে বাধিলেও উপকার হইয়া থাকে।পখ্যাপথ্য।-জীর্ণজরে যে সমস্ত পথ্যাপথ্য লিখিত হইয়াছে, প্লীহরােগেও সেই সমস্ত প্রতিপালন করা আবশ্যক। ইহাতে সাধারণ দুগ্ধ না দিয়া, তাহার সহিত ২টী পিপুল সিব্ধ করিয়া, সেই দুগ্ধ পান করিতে দিবে ; তাহাতে প্লীহারও উপশম হইয়া থাকে। সকল প্রকার ভাজাপােড়া দ্রব্য, গুরুপাক দ্রব্য ও তীক্ষ্মবীৰ্য্য দ্রব্য ভােজন এবং অধিক পরিশ্রম, রাত্রি জাগরণ, দিবানিদ্রা ও মৈথুনাদি এইরােগে একেবারে নিষিদ্ধ।

 

নিদান ও লক্ষণ।-প্লীহরােগের যে সমস্ত কারণ কথিত হইয়াছে, যকৃৎবােগও সেই সমস্ত কারণে উৎপন্ন হইয়া থাকে। তদ্ভিন্ন, অতিরিক্ত মদ্যপান,| এবং অর্শ প্রভৃতি রােগে হঠাৎ রক্তস্রাব রুদ্ধ হওয়া প্রভৃতি কারণেও যকৃৎ বৰ্দ্ধিত বা সঙ্কুচিত হইলে যকৃতের বিকৃতি ঘটিয়া থাকে। অবিকৃত অবস্থায় হস্ত-স্পর্শে যকৃৎ অনুভব কবা যায় না। কিন্তু বর্ধিত হইলে তাহা টিপিয়া স্পর্শ করিতে পারা যায়। যকৃতের বিকৃত অবস্থায় ঐস্থানে বেদনা, মলবােধ বা কম-বৎ অল্প অল্প মলাব, সৰ্বশরীর—বিশেষতঃ চক্ষু পীতবর্ণ, কাস, জঙ্গি পঞ্জরের নিমগ কযিয় ধরা, ঐ স্থানে কীবেধবৎ বেদনা, দরি সমুদায় দক্ষিণ অবয়বে বেদমা, মুখে তিক্তাদ,

 

বনবেগ বা বমি, নাড়ীরকঠিনত, সৰ্ব্বদা অবােধ, এবং প্লীহয়ােগােক্ত অন্যান্য লক্ষণসমূহও লক্ষিত হয়। এই  রােগে রােগ দক্ষিণপাৰ্থে শয়ন করিতে পারে না। প্লীহলােগোক্ত লক্ষণ অনুসারে ইহাতেও বাতাদি দোষের আধিক্য অনুভব করিতে হয়। যকৃৎরােগও অধিকদিন অচিকিৎস্য অবস্থায় অবস্থিত থাকিলে পাও, কামলা, ও শােথ প্রভৃতি অনেক উৎকট রােগ উৎপাদন করিয়া থাকে।

যদুদর রােগ

 

যকৃৎ অধিক বর্ধিত হইয়া, উদর পর্যন্ত বিস্তৃত  হইলে, তাহাকে যদুর কহে। উদরােগে তাহার বিস্তৃত লক্ষণাদি লিখিত হইবে।চিকিৎসা।-যকৃৎ রােগের সমুদায় চিকিৎসাই প্লীহরােগের ন্যায়।ইহাতেও সৰ্ব্বদা কোষ্ঠ পরিষ্কার রাখা আবশ্যক। প্লীহরোগােক্ত সমুদায় ঔষধই এই রােগে প্রয়ােগ করা যায়। তদ্ভিন্ন যকৃৰিলৌহ, যকৃৎপ্লীহারি লৌহ, যকৃৎ-প্লীহােদর লৌহ, যবক্ষর, মহাদ্রাবক ও মহাশখাবক প্রভৃতি ঔষধও অবস্থা বিবেচনা করিয়া প্রয়ােগ করিবে। যকৃতের বেদনা নিবারণ জন্ম  তাৰ্পিণতৈল মর্দন করিয়া, গরম জলের স্বেদ অথবা গোমূত্র গরম করিয়া বােতলে পূরিয়াকিংবা তাহা দ্বারা ফ্ল্যানেল ভিজাইয়া যকৃৎস্থানে স্বেদ দেওয়া কর্তব্য। রাই-সর্ষপের প্রলেপ যকৃতের বিশেষ উপকারী। গুলঞ্চ ও বিটলবণ সমভাগে গােমূত্রসহ বাটিয়া ও গরম করিয়া যকৃতের উপর প্রলেপ দিলে, যকৃতের বেদনা ও কঠিমতা নিবারিত হয়।

 

জ্বরাতিসার সংজ্ঞা ও কারণ।-এর ও অতিসার—এই উভয় রােগ একইসময়ে উপস্থিত হইলে, তাহাকে অতিসার কহে। ইহা একটী স্বতন্ত্র রােগনহে, কিন্তু ইহার চিকিৎসা বিধি স্বতন্ত্র বলিয়াই ইহা স্বরূপে নির্দিষ্ট হইয়াথাকে। জ্বর ও অতিসারের যেসকল উৎপত্তিকারণ নির্দিষ্ট আছে, সেই সমস্ত কারণ মিলিতভাবে সম্বটি ত হইলেই জাতিসার রােগ উৎপন্ন হয় আর ও,জরকালে অপথ্য সেবা পিত্তকারক দ্রব্য ভােজন, দূষিত-জলপান, দূষিত-বায়ু-সেবন এবং তীঙ্গ বিরেচন প্রভৃতি কারণেও জাতিসার উপস্থিত হইতে দেখা যায়। যে সকল জরে পিত্তের প্রকোপ অধিক হইয়া থাকে, তাহাতেও জরাতি-সায় হইবার সম্ভাবনা।চিকিৎসা। জর ও অতিকার—এই উভয় রােগের মিলিত চিকিৎসা হইবার উপায়

 

নাই ; যেহেতু জানাশক সকল ঔষধই প্রায় বিরেচক, এবং অতি-সারের সকল ঔষধই মলবোধক; সুতরাং অরনাশক ঔষধ অভিসার বিরােধী এবংঅ৷  তিসার নিবারক ঔষধ জবের বিরুদ্ধ। এইজন্যই ইহার চিকিৎসাবিধি স্বতন্ত্ররূ পে নির্দিষ্ট হইয়াছে। এই রােগে প্রথমতঃ মলবােধের চেষ্টা করা উচিতনহে; তাহাতে কোষ্ঠসঞ্চিত মল রুদ্ধ হইয়া, অন্যান্য উৎকট রােগ উৎপাদনপারে। কিন্তু ‘যেসকল স্থলে অতিরিক্ত অতিসার জন্য রােগীর অষ্ণ অনিষ্টেরআশঙ্কা বােধ হইবে, সেইসকল স্থলে মলরােধক ঔষধ প্রয়ােগই সৎপরামর্শ।

 

সাধারণতঃ এই রােগের প্রথমাবস্থায় পাচক ও অগ্নি-উদ্দীপক ঔষধাদি প্রয়ােগ করিতে হয়। ধ’নে একতােল ও ৩ঠ ১ একতােলা একত্র ৩২ বত্রিশ তােল।জলে সিদ্ধ করিয়া, ৮ আট তোলা থাকিতে ছাঁকিয়া তাহাই দিবসে ২৩ দুইতিনবার সেবন করাইবে; অথবা স্ত্রীবেরালি, পাঠাদি ,নাগরাদি,গুড় চ্যাদি,উশীরালি, পঞ্চমূলাদি, কলিঙ্গালি, মুস্তকাদি, ঘনাদি, বিপঞ্চক, ওকুটাদি ,প্রভৃতি কাথ বিবেচনা পূর্বক ব্যবস্থা করিবে। ইতেও পীড়ায় উপশম নাহইলে, রোগের অবস্থানুসারে অনুপান বিশেষের সহিত কোষাদি চুর্ণ, কলিঙ্গাদিগুড়িকা ও মধ্যম গঙ্গাধর চুর্ণ, বৃহৎ কুটজালে এবং মৃতসঞ্জীবনী ২টা, সিদ্ধপ্রাণেশ্বর অস, কনকসুর রস, গগনসুন্দর বস, আনন্দভৈরব ও মৃতসঞ্জীবনী রস,প্রভৃতি ঔষধ প্রয়ােগ করা আবশ্যক।

পধ্যাপথ্য

 

রােগী সবল থাকিলে, প্রথমতঃ উপবাস, তৎপরে উৎ-পলকের সহিত যবাণু পাক করিয়া, তাহাতে কিঞ্চিৎ দাড়িমের রস মিশ্রিতকরিয়া পান করিতে দিবে। অথবা খইয়ের মণ্ড, যবের মগু, পানিফলের পালে, এরারুট ও বালি খাইতে দেওয়া যায়। এই অবস্থায় আমাদের“ সঞ্জীবন-খাদ্যঅতিপয় উপকারী পথ্য। রােগ দুৰ্বল হইলে উপবাস না দিয়া প্রথম হইতেইঐরূপ লঘু পথ্য দেওয়া আবশ্যক। পীড়ার হ্রাস ও রােগীর পরিপাক-শক্তিরআধিক্যানুসারে ক্রমশঃ পুরাতন সূক্ষ্ম-লিত ভুলের , অন্ন। মসূর দলের যুষ,বেগুন, ডুমুর ও ঠোটেকলা প্রভৃতির তরকারী ; মাগুর, শিঙ্গি, কই ও মউরােল।প্রভৃতি ক্ষুদ্ৰমৎস্যের ঝােল ; অবস্থা বিশেষে কোমল মাংসের রস, ছাগদুগ্ধ এবংদাড়িম ও কাচা-বেলপোড়া, প্রভৃতি এই পীড়ায় পথ্য প্রদান করিবে। পানেরজন্য গরম জল শীতল করিয়া ব্যবস্থা করিবে।

 

 

নিষিদ্ধ কৰ্ম্ম।গুরুপাক ও তীক্ষ্ণবীর্য দ্রব্য, গোধূম, যব, মাষকলাই বুট, অড়হর, মুগ, শাক, ইক্ষু, গুড়, দ্রাক্ষা, সারকদ্রব্য, তরল দ্রব্যের অধিকপান, হিম, রৌদ্র বা অগ্নি-সন্তাপ, তৈলমর্দন, মান, ব্যায়:ম, রাত্রিজাগরণ, মৈথুনপ্রভৃতি এই পীড়ায় অনিষ্টকারক।অতিসার-সংজ্ঞা।—যে রােগে শরীরস্থ দূষিত রস, জল, স্বেদ, মেদঃ,মু, কফ, পিত্ত ও রক্ত প্রভৃতি ধাতুসমূহ অগ্নিকে মন্দীভূত করিয়া মলের সহিতমিশ্রিত এবং বায়ু কর্তৃক অধােভাগে প্রেরিত হইয়া অতিমাত্র নিঃসরণ হয়,তাহাকে অতিসার কহে।নিদান।গুরুপাক, অতিথি, অতি-রুক্ষ, অতি-উষ্ণ, অতি-শীতল,অতি তরল ও অতি কঠিন দ্রব্য ভােজন; ক্ষীর মৎস্যাধির স্থায় সংযােগবিদ্ধ| ভোজন, পূর্বের আহার জীর্ণ না হইতে পুনরায় আহার, অপক-

 

 

ভােজন,কোন দিন বহু কোন দিন অল্প আহাৰ, অনির্দিষ্ট সময়ে তােজন, যে কোনদ্রব্য অতিরিক্তপরিমাণে ভােজন, এবং বমন, বিরেচন অনুবাস, নিরূহণ বাস্নেহাদি ক্রিয়ার অভিযােগ, অল্পযােগ অথবা মিথ্যাবােগ। স্থাব-বিষক্ষণ ; দুষ্টমদ্য বা দূষিতজলের অতিপান; অনভ্যস্ত ও অনিষ্টকারক আহার-বিহারামি ।ঋতু ব্যতিক্রম ; ভয়, শােক, অধিক জলক্রীড়া, মল-মূত্রাদির বেগধারণ, ও ক্রিমি-দোষ, এইসমস্ত কারণে অতিসার রোগ উৎপন্ন হইয়া থাকে। এই রোগ হয়-ভাগে বিভক্ত। যথা—বাতজ, পিত্ত, কফজ, ত্রিদোষজ, শােকজ ও অপ-রস-জাত। বিদোযজনিত অতিসারে দুই দোষের মিলিত লক্ষণ ব্যতীত অপর কোনবিশেষ লক্ষণ প্রকাশ পায় না বলি, তাহা স্বতন্ত্ররূপে নির্দিষ্ট হয় নাই।

 

 

পূৰ্বরূপ।—সমুদায় অতিসারেই বিশেষ লক্ষণ প্রকাশেরপূর্বে হৃদয়ে,ভিস্থলে, গুদেশে, উদরে ও কুক্ষিদেশে সুচীবেধবৎ বেদনা, শারীরিক অব-| সন্নতা, বায়ু ও মলের বিবদ্ধতা, উদরাম্মান এবং অপরিপাক প্রভৃতি পূৰ্বরূপলক্ষিত হইয়া থাকে।

বাতজর লক্ষ

 

।-বাতজ-অতিসারে রক্ত বা শ্যাবর্ণ, ফেনযুক্ত, রুক্ষ,অপরিপক মল বারংবার অল্প অল্প পরিমাণে শব্দের সহিত নির্গত হয়, এবং গুহ্যদ্বারেবেদনা হইয়া থাকে।পিত্ত লক্ষণ।-পিত্তজ-অতিসারে পীত, হরিৎ, অথবা লােহিতবর্ণেরমল নিঃসৃত হয় ; ইহাতে তৃষ্ণা, মুচ্ছা, দাহ, এবং গুহত্বারে আলা ও ক্ষত হইয়া থাকে

 

কফ-লক্ষণ |–কফজ-অতিসারে শুক্লবর্ণ, গাঢ়, কফমিশ্রিত, আম-গন্ধযুক্ত এবং শীতল মল নিঃসৃত হয়। এই অতিসারে মলত্যাগকালে রােগীর শরীর রোমাঞ্চিত হইয়া থাকে।

 

সন্নিপাতজ-লক্ষণ।—ত্রিদোষজ অর্থাং সন্নিপাতজ অতিসারে উক্তবাজালি ত্রিবিধ অতিসারেরই লক্ষণসকল প্রকাশিত হয়, বিশেষতঃ ইহাতেনল শূকরের চর্বি অথবা মাংসধৌত জলের ন্যায় হইয়া থাকে। এই ত্রিদোষজঅতিসার নিতান্ত কষ্টসাধ্য।

 

শােকজ লক্ষণ।—ফোনরূপ দুর্ঘটনাবশতঃ অতিমাত্ৰ শোকার্ত হইয়াঅল্পাহারী হইলে, শােকজ-বাষ্প ও উন্না কোষ্ঠ প্রবেশপূৰ্ব্বক জঠরাগ্নিকে মন্দীভূতএবং রক্তকে স্বস্থান হইতে চালিত করে ; তাহা হইতেই শােকজ অতিসার উৎপন্নহয়। এই অতিসারে গুঞ্জাল অর্থাৎ কুঁচের ন্যায় লােহিতবর্ণ রক্ত, মলমিশ্রিতঅথবা মলরহিত হইয়া, গুহ্যদ্বার দিয়া নির্গত হয়। মলমিশ্রিত থাকিলে ঐ রক্তঅতিশয় দুর্গন্ধযুক্ত এবং মলশূন্য হইলে নির্গন্ধ হইয়া থাকে। শােক ত্যাগ করিতেনা পারিলে, এই অতিসারও দুঃসাধ্য এবং কষ্টপ্রদ হইতে দেখা যায়।

 

অমাতিসার-লক্ষণ ভুক্তদ্রব্যের অপরিপাকবশতঃ বাতাদি দোষ-হয় বিপথগামী হইয়া, মল ও রক্তাদি ধাতুসমূহকে দূষিত করে, এবং নানাবর্ণ-যুক্ত অল্প অল্প মল বারংবার নিঃসরিত করিয়া থাকে। ইহাকেই অমাভিসারঅর্থাৎ অপকরসজাত অতিসার কহে। এই অতিসারে মলত্যাগকালে উদরেঅত্যন্ত কামড়ানি হয়।

 

অতিসারে মল-পরীক্ষা।-সকলপ্রকার অতিসারেই যে পৰ্য্যন্তমল অত্যন্ত দুর্গন্ধযুক্ত ও পিচ্ছিল থাকে, এং জলে নিক্ষিপ্ত হইলে ডুবিয়া যায়,ততদিন পর্যন্ত তাহাকে আম অর্থাৎ অপক অতিসার কহে। আর যখন মলদুর্গন্ধ ও অপিচ্ছিল হয় এবং স্কুলে নিক্ষিপ্ত হইলে ভাসিয়া বেড়ায়, তখনতাহাকে পকাতিকার কহে। এই অবস্থায় কোষ্ঠের ও দেহের লঘুতা লক্ষিতহইয়া থাকে।

 

অসাধ্য ও সাঘাতি ক-লক্ষণ।—যে কোন অতিসাররােগে যদিমল নিষ, কৃষ্ণবর্ণ, অথবা যকৃৎখণ্ডের ন্যায় কৃষ্ণ-লােহিত বর্ণ, স্বচ্ছ, এবং ঘৃত,তৈল, বসা, মজ্জা, নিরস্থিষ্টি মাংস, দুগ্ধ, দধি, অথবা মাংসধৌত জলের ন্যায়,নীল-কৃষ্ণবর্ণ, কিংবা ঈষৎ কৃষ্ণারুণবর্ণ, চিকণ, নানাবর্ণ, কিংবা ময়ুরপুচ্ছের ন্যায়| বিবিধবর্ণের চন্দ্ৰকযুক্ত, ঘন, শবগন্ধের ন্যায় দুর্গন্ধযুক্ত, মস্তিষ্কের ন্যায় বর্ণযুক্তসুগন্ধ, অথবা পচাগন্ধবিশিষ্ট, অথবা পরিমাণে অধিক হয়, তাহা হইলে সেরােগীর মৃত্যু ঘটিরা থাকে। যে অতিসাররােগে তৃষ্ণা, দাহ, অন্ধকারদর্শন,শাস, হিকা, পার্শ্বশুল, মুচ্ছ, চিত্তের অস্থিরতা, গুমধ্যে বলির পাক ও প্রলাপপ্রভৃতি উপদ্রব প্রকাশিত হয়, তাহাও অসাধ্য। অথবা যে অতিসারবােগে গুহায়সংবৃত হয় না, যাহাদের বল ও মাংস ক্ষীণ হইয়া যায়, এবং যাহাদের গুদেশপাকিলেও শরীর শীতল থাকে, তাহাদের সেই অতিসাররােগও অসাধ্য। প্রবলঅতিসার বিনাচিকিৎসায় সহসা নিবৃত্ত হইলে, তাহাও অসাধ্যলক্ষণ। এইসকললক্ষণ প্রাশিত হইলে, বালক, কুক, বা ফুৰা কাহারও জীবনের আশা করা যায় না।

জাতিসার

 

—এই সমস্ত অতিসার ব্যতীত “জাতিসার নামকআর একপ্রকার অতিসার আছে। পিত্ত-অতিসার উৎপন্ন হইলে, অথবা উৎপন্নহইবার অব্যবহিত পূর্বে যদি অধিক পিত্তকর দ্রব্য ভােজন করা যায়, তাহা| হইলে এই অতিসার জন্মিয় থাকে। ইহাতে মলের সহিত মিশ্রিতভাবে রক্তঅথবা কেবল রক্তই নিঃসারিত হয়। অন্যান্য অতিসারের প্রাচীন অবস্থাতেও কখনকখন মলের সহিত অল্প রক্ত নিঃসৃত হইতে দেখা যায়।

 

আরােগ্য-লক্ষণ।–অতিসার সম্পূর্ণরূপে নিবৃত্ত হইলে, মূত্রত্যাগকালেবা অধােবায়ুর নিঃসরণকালে মলভেদ হয় না, এবং অগির দীপ্তি ও কোষ্ঠের লঘুতাপ্রভৃতি লক্ষণ প্রকাশিত হয়।

 

অতসারে ধারক ঔষধ ব্যবহার নিয়ম।- কোন অভিসারেরইঅপৰু অবস্থায় ধারক ঔষধ প্রয়োগ করা উচিত নহে। অপকাবস্থায় ধারকঔষধ প্রযুক্ত হইলে, দোষসকল রুদ্ধ হইয়া, শােথ, পা, প্লীহা, কুষ্ঠ, গুল্ম, জ্বর, •দণ্ডক, অলক, আখান, গ্রহণ এবং অশঃ প্রভৃতি বিবিধ রােগ উৎপাদনকরিতে পারে ; এইজ আমাতি সারের চিকিৎসা স্বতন্ত্ররূপে নির্দিষ্ট হইয়াছে।কিন্তু যেসকল স্থলে দোষ অতিমাত্র প্রবল হইয়া অতিরিক্ত মলস্রাব করায়,এবং তজ্জন্য রােগীর ধাতু ও বলাদি ক্রমশঃ ক্ষীণ হইতে দেখা যায়, সেসকলস্থলে অপকাবস্থাতেই ধারক ঔষধ প্রয়ােগ করা আবশ্যক। নিতান্ত শিশু, বৃদ্ধ ওদুৰ্বল ব্যক্তিদিগেরও অপকাতিসারে ধারক ঔষধ প্রয়ােগ করিতে হয়; নতুবাসহসা তাদের বলক্ষয় হইলে, অধিকতর দুঃসাধ্য হইয়া উঠে।

 

আমাতিসারে চিকিৎসা ‘আমাতিসারে অর্থাৎ অতিসারের অপকঅবস্থায়, আমল ও মলের বিবন্ধ-নিবারণ, এবং দোষের পরিপাক ও অগ্নিরদীপ্তিসাধন জন্য ধ’নে, গুঠ, মুতা, বালা ও বেলশুঠ, এই ধান্যপঞ্চকের কাথসেবন করাইবে; কিন্তু পিজ অতিসারে ঐ পাঁচটী দ্রব্যের মধ্য হইতে ওঠ বাদদিয়া, অপর চারিটী দ্রব্যের কাথ প্রয়ােগ করিতে হয় ; উদরে বেদনা এবং তৃষ্ণাথাকিলে, শুঠ, আইচ ও মুতা, এই তিন দ্রব্যের, অথবা ধনে ও ৩ঠ এই দুইদ্রব্যের কাথ প্রয়ােগ করিবে; ইহাদ্বারা অপৰু দোষের পরিপাক এবং অগিরদীপ্তি

 

হইয়া থাকে। এই অবস্থায় অল্প অল্প গুটল হল নির্গত হইলে, এবংউদরে কামড়ানি থাকিলে, হরীতকী ও পিপুল, জলের সহিত বটিয়া, ঈষদুষ্ণকরিয়া, কোষ্ঠানুসারে মাত্রাবিবেচনাপূর্বক সেবন করিতে দিবে। ইহা বিরেচকঔষধ। আকনাদি, হিন্দু, বনানী, বচ, পিপুল, পিপুলমূল, চই, চিতামূল,৩ঠ ও সৈন্ধবলবণ, প্রত্যেকের চুর্ণ সমভাগে একত্র মিশ্রিত করিয়া, • একআনা পরিমাণে কিঞ্চিৎ গরমজলের সহিত সেবন করাইলে, অথবা ঐরূপ মাত্রায়শুষ্ঠাৰি চুর্ণ ও হরীতকীচুৰ্ণ প্ৰয়ােগ করিলে, আমাতিসারের উপশম হয়।২০ কুড়িটা মুত ওজনে যত হইবে, তাহার ৮ আটগুণ ছাগদুগ্ধ ও ছাগদুগ্ধের৪ চারিগুণ জল এফএ পাক করিয়া, দুর্থভাগ অবশিষ্ট থাকিতে ছাঁকিয়া, সেই দুপান করাইলে, অামদোষ ও তজ্জন্ত উদরের বেদনাদি বিনষ্ট হয়। পিঞ্জল্যানি..বৎস কাদি, পথ্যাদি, মাদি, কলিগদি ও জ্যষণাদি প্রভৃতি পাচন এইঅবস্থায় প্রযােজ্য।

 

পাতিসারের চিকিৎসা।-আমাতিসারের আমদোষহওয়ার পরে, প্রথমতঃ পূর্বোক্ত পাতিসারের লক্ষণ প্রকাশ পাইয়াছে কি না,তদ্বিষয়ে লক্ষ্য রাখিতে হইবে। পাতিসারের লক্ষণ প্রকাশিত হইলেই বাতাদিদোষের অবস্থা বিবেচনা করিয়া তদনুসারে চিকিৎসা করিবে।বিভিন্নদোষজ অতিসার-চিকিৎসা।বায়ুজনিত-অতিসারে পূতি-কাদি, পথ্যাদি ও বচাদি কষায় প্রযােজ। পিত্তজ-মতিসারে মধুকাদি, বিবাদি,কইফলাপি, কটাদি, কিরাততিশদি ও অতিবিষাদি পাচন প্রয়ােগ করিবে।প্লে-অতিসারে পথ্যাদি, কৃমিশত্রাদি, চব্যাদি পাচন, এবং পাঠাদি চুর্ণ,হিলাদি চূর্ণ, বর্ধলাদি যোগ, ও পথ্যাদি চুর্ণ ব্যবস্থা করিবে। ত্রিদোষজঅতিসারে সমঙ্গাদি ও পঞ্চমূলীবলাথি কষায় ব্যবস্থায়। শােকজ ও ভয়জনিতঅতিসারে বাতজ-অতিসারের ন্যায় চিকিৎসা করিতে হয়; তদ্ভিন্ন পৃপিণ্যাদিকষায়ও শােকজ-অভিসারে প্রয়ােগ করা যায়। পিত্তশ্নেতিসারে মুস্তাদি, সমঙ্গাদিও কুটজাদি পাচন;

 

বাতশ্লেয়াতিসারে চিত্ৰকাদি পাচন, এবং বাতপিত্তাতিসারেকলিঙ্গাদি কল্ক প্রয়ােগ করা কর্তব্য।রক্তাতিসারের চিকিৎসা।-রক্তাভিসারে আমশূল এবং মলেরবিবন্ধ থাকিলে, কঁচা বেলপােড়া গুড়ের সহিত মিশ্রিত করিয়া, ২ দুইতােল আন্দাজ মাত্রায় খাইতে দিবে। শীমূলের ছাল, কুলছাল, জামছাল,পিয়াল ছাল, আমছাল, অথবা অনছাল বাটিয়া, দুগ্ধ ও মধুর সহিত সেবনকরিতে দিবে। কচি দাড়িমফলের খােলা ও কুড়চির ছাল প্রত্যেক ১ একতােলা,৩২ বত্রিশতােল। জলসহ সিব্ধ করিয়া, ৮ আট ভােলা থাকিতে ছাঁকিয়া, তাহার| সহিত • দুই আনা মধু মিশ্রিত করিয়া সেবন করাইবে। আম, জাম ওআমলকীর কচিপাতা এক থেতাে করিয়া

 

তাহার রস ২ দুই তােণ মধু ওছাগগুপ্তের সহিত সেবন করাইবে। কাটান’টের মূল ৩ তিন মাষা, চাউলধৌতজলের সহিত বটিয়া, তাহাতে চিনি ও মধু মিশ্রিত করিয়া সেবন করাইবে।কৃষ্ণতিল বাটি, তাহার চারিভাগের একভাগ চিনি মিশ্রিত করিয়া, ছাগ-| ‘দুগ্ধের সহিত খাইতে দিবে। বটের ঝুরি, চাউলুতে জলের সহিত পেষণকরিয়া, ঘােলের সহিত পান করাইবে। ৩৪ তিন চারিটা আয়াপানের বাকুশিমার পাতায় কাথ প্রস্তুত করিয়া সেবন করাইবে। কুড়চিছালের কাথপ্রস্তুত কবিয়া, সেই কাথ পুনৰ্বার পাক করিতে হইবে; এবং ঘনীভূত হইলে,তাহাতে

 

আতইচচূর্ণ • দুই আনা প্রক্ষেপ দিয়া সেবন করাইলে, প্রবল রক্তাতি-সার এবং অন্যান্য অতিসার নিবারিত হয়। কুড়চিছাল ৮ আটতােল ১ একসে জলসহ সিদ্ধ করিয়া ৮ আটভােলা থাকিতে ছাঁকিয়া লইবে; এইরূপেস্বতন্ত্রভাবে দাড়িমফলের খেলার কাথ প্রস্তুত করিতে হইবে পরে উভয় কাথপুনৰ্ব্বার এক পাক করিবে। ঘন হইলে, তাহাই ১ এক তোলা মাত্রায় ঘােলেরস হিত প্রয়োেগ করিবে।

 

গুহ্যদ্বারের বেদনা-নিবারণ।-মলদ্বারে অত্যন্ত বেদনা থাকিলে, অহিফেন ও চারি রতি, খদির চারি রতি ও ময়দা আট রতি, একত্র ধৃতসহবর্তী প্রস্তুত করিয়া, এক একটা দুইঘণ্টা অন্তর গুহদ্বারে অঙ্গুলি দ্বারা প্রবেশকরাইয়া দিবে। পেঁড়ি অর্থাৎ গুগলি দ্বতে ভাজিয়া তাহার স্বেদ দিলেও বেদনারআন্ত শান্তি হইয়া থাকে।

 

জীর্ণাবস্থায় চিকিৎসা।–সমুদয় অতিসারের জীর্ণাবস্থায়, অর্থাৎ যেসময়ে আমদোষ পরিপাক পাইয়া যায়, বেদনার শাস্তি হয়, জঠরাগির দীপ্তি হয়,অথচ নানাবর্ণের মল নিঃসৃত হইতে থাকে, সেই সময়ে, বংসকাদি পাচল, কুট-পুটপাক, কুটজলেহ, কুটজষ্টক ও বড় ধৃত প্রতি প্রয়ােগ করিবে। সেইপ্রত্যেকের চুর্ণ একতােলা এবং অহিফেন ।• অন্ধ তােলা একত্র মিশ্রিত করিয়া,এক আনা মাত্রায় আয়াপানের কাথ বা শীতলজলসহ দিবলৈ ৩ তিনবার সেবনকরাইলে, বিশেষ উপকার পাওয়া যায়।প্রবল অতিসারে মলভেদ-চিকিৎসা।—প্রবল অতিসারে মতভেদকুদ্ধ করিবার জন্য জলের সহিত আমলকী বাটিয়া, তাহারা

 

নাভির চারিপার্শ্বেআলবাল করিয়া অর্থাৎ আল দিয়া, মধ্যস্থল নির্জল আদার রসেপূর্ণ করিবে;ইদ্বারা প্রবল অতিসার বেগ প্রশমিত হয়, এবং বেদনারও শান্তি হইয়া থাকে।জায়ফল বাটিয়া তাহার প্রলেপ দিলে, অথবা আমের ছাল কঁজিতে ব্যাটিয়াতাহার প্রলেপ দিলেও ঐরূপ উপকার পাওয়া যায়। মাজুফল চুর্ণ ৫ পাঁচ রতি,অহিফেন।• সিকি রতি, গদচুর্ণ ৫ পাঁচ রতি, একত্র মিশ্রিত করিয়া, প্রত্যেকদান্তের পর এক একবার জলসহ সেবন করাইবে। দাস্ত বন্ধ হইলে, দিবসেএকমাত্র মাত্র দিবে। অতিসারের সহিত বমন উপদ্রব থাকিলে, বিাদি ওপটোলাদি পাচন ব্যবয়ে ।

উপদ্রব চিকিৎসা

 

বমন, তৃষ্ণা ও জর প্রভৃতি বিবিধ উপদ্রব থাকিলে, প্রিয়াদি, জাদি, ব্রীবেরাদি ও দশমূল-গুষ্ঠী, প্রভৃতি ব্যবস্থা করিবে।গুহদ্বারে দাহ থাকিলে, পটোলপত্র ও যষ্টিমধু সিদ্ধ করিয়া, সেই জল ধারা অথবাউষ্ণ-ছাগদুগ্ধদ্বারা গুহারে সেক দিবে, এবং পটোলপত্র ও যষ্টিমধু ছাগদুগ্ধের সহিতবটিয়া গুহ্যদ্বারে প্রলেপ দিবে।প্রযোজ্য ঔষধ।কথিত সর্বপ্রকার অতিসারেই দোষের ও রােগীরবলাবল বিবেচনা করিয়া অনুপানবিশেষের সহিত নারায়ণ চূর্ণ, অতিসারবাররস, জাতীফলাদি বটিকা, প্রাণের রস, অমৃতার্ণব, ভুবনেশ্বর, জাতীর ,অভয়নৃসিংহ, আনন্দভৈরব, কপূররস, কুটজরিষ্ট ও অহিফেনাস প্রভৃতি ঔষধপ্রয়ােগ করিতে হয়। ইহা ভিন্ন গ্রহণীরােগােক্ত কতিপয় ঔষধ বিবেচনাপূর্বকপ্রয়ােগ করা যাইতে পারে।

 

পথ্যাপথ্য।–অপক অতিসারে লবন অর্থাৎ উপবাসই প্রশস্ত।দুর্বল অতিসার-রােগীকে উপবাস না দিয়া লঘুপথ্য দেওয়া আবশ্যক। খইয়েরহাতু লারা এ করিয়া অথবা অলস সাও, এরারুট, বালি, পানিফলেরপালে, কিংবা ভাতের মণ্ড ও যবের মণ্ড প্রস্তুত করিয়া দিলে, তাহা বিশেষলঘুপথ্য হয়। এই সমস্ত পথ্য অপেক্ষা ঔষধবিশেষের সহিত যবাগু সিদ্ধ করিয়াখাইতে দিলে, তাহাতে অধিক উপকার পাওয়া যায়। শালপাণী, চাকুল, বৃহতী,কণ্টকারী, বেড়েলা, গােক্ষুর, বেল, আকনদী, শুঠ ও ধন এই সকলদ্রব্যের কাথের সহিত যবায়ূ প্রস্তুত করিয়া, সকল প্রকার অতিসারেই তাহাপথ্য দেওয়া যাইতে পারে। ইহা ভিন্ন পিত্তম্মেতিসারে শালপাণী, বেড়েলা,বেলঠ ও চাকুলে, এই সকল দ্রব্যের কাথ ; অথবা ধনে ও শঠ উভয় দ্রব্যের কাথ এবং কফাতিসারে পিপুল,

 

পিপুলমূল, চই, চিতামূলও ওঠ,এই সকল দ্রব্যের কাখের সহিত যবাণু প্ৰস্তুত করিয়া পথ্য প্রদান করিবে।গরম জল শীতল করিয়া সেই জল পান করানই উচিত। অত্যন্ত পিসাবশতঃ বারংবার জলপান করিতে চাহিলে, ধনে ও বালা, এই উভয় দ্রব্যের সহিতজল সিদ্ধ করিয়া, সেই জল পান করিতে দিবে ; তাহাতে তৃষ্ণ, দাহ ওতিসারের শাস্তি হয়। পাতিসারে পুরাতন সূক্ষ্ম শালিতওলের অন্ন, মলুৰুযুষ, পটোল, বেগুন, ডুমুর, ঠটেকলা, থুলকুড়ি ও গন্ধভাদুলে প্রভৃতির তরকারী ;

 

কই, মাগুর, শিলি ও মউরােলা প্রভৃতি ক্ষুদ্র মৎস্যের ঝােল ; ঘােল এবংচুণের জলের সহিত দু মিশ্রিত করিয়া, অথবা অতিসারনাশক দ্রব্যেরসহিত সিদ্ধ করিয়া সেই দুখ প্রভৃতি পথ্য দেওয়া উচিত। অতিশয় জীর্ণঅতিসারে কেৰল দুখও উপকারী। রতিসারে গাে-সুখের পরিবর্তে ছাগদুব্যবস্থা করিবে, তাহাতে বিশেষ উপকার দর্শিয়া থাকে। কাচা বেলপােড়।বা বেলের মাের, গাড়ি, কেশুর ও পানিফল প্রভৃতি জীর্ণাতিসারে ভােজনকরিতে দেওয়া যায়।

 

নিষিদ্ধ কৰ্ম্ম।-প্রতিসাজের পাপথ্যে যে সমস্ত আহার-বিহারাদিনিষেধ করা হইয়াছে, অতিসার রােগেও সেই সমস্ত নিষিদ্ধ। তবে রােগী।বলবান থাকিলে, ২/৩ দিন অন্তর গরম জল শীতল করিয়া তাহাতে সান ফরান্স যাইতে পারে।

Related Posts

সাফল্যের চাবি আপনার হাতে

নতুন বছরে নিজকে সফল করতে পারেন   নতুন বছর শুরু হয়েছে। সবারই ইচ্ছা তার এ বছরটি যেন গত বছরের থেকেআরাে বেশি ভালাে ও সুন্দর কাটে। আর আপনার এ…

কক্সবাজার  ভ্রমণ ২০২১

  কক্সবাজার  ভ্রমণ   নভেম্বরের ২৩ তারিখে বন্ধুরা মিলে আড্ডা দেওয়ার সময় কথা উঠলো কক্সবাজারের – সেন্ট মার্টিন।তারিখ ও ঠিক করে ফেললাম ৫ ই ডিসেম্বর। কথা অনুযায়ী ট্রেনে…

বাংলাদেশের

    বাংলাদেশে কয়েক দিন দরে লক্ষ করা যাচ্ছে     হিন্দু ভাইদের পুজো চলা কালিন,, আমাদের ইসলাম ধর্মের পবিত্র কোরআন শরিফ,যাকে আমরা সম্মান করে মাথায় রাখি সেই…

মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তির ব্যবহার

    তথ্য মাধ্যমে চাকরি বিজ্ঞাপন বিশ্লেষণ এবং একটি প্রতিবেদন প্রস্তুত   চাকরির ধরন ও প্রশিক্ষণ, দক্ষতা, প্রয়ােজনীয় অভিজ্ঞতাপত্রপত্রিকায় তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক চাকরির বিজ্ঞাপন সাধারণত ইংরেজিতেই প্রকাশিত হয়েথাকে। তাই…

মাইক্রোসফট ওয়ার্ড বিভিন্ন সমস্যা ও সমাধান

  বাংলা ফন্ট সমস্যা     সমস্যা-১ কমপিউটারে বাংলা বিশেষ করে বিজয় বাংলা ব্যবহারে অনেক সময় অনেক জটিলতা দেখাদেয়। বিজয় বাংলা সঠিকভাবে ইন্সটল করা থাকলেও অনেক শব্দ টাইপ…

সূর্যাস্তের দৃশ্য দেখার সুযোগ সবার হয় না।

  সূর্যাস্তের দৃশ্য দেখার সুযোগ সবার হয় না     নীলা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় স্নাতক ফাইনাল দিয়েছে।বরাবর সে বিগত পরীক্ষায় ভালাে ফলাফল অর্জন করেছে। পরীক্ষায়সে যে পাস…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *