ব্রেইন ভালো রাখার উপায়।

ব্রেইন ভালো রাখার উপায়

 

ছেলেটির চুল সােনালি রঙের, চোখ দুটো আকাশের মতো নীল চেহারায় কোথায় জানি এক ধরনের বিষণ্ণতা লুকিয়ে আছে। মেয়েটির মাথা ভরা লালচে তুল, চোখ দুটি মেঘের মতাে কালো। চেহারার মাঝে এক ধরনের উছুল সজীবতা ।। ছেলেটি মেয়েটির একটি হাত স্পর্শ করে নরম গলায় বলল, “আমি তোমাকে আজ একটি কথা বলতে চাই।”

গোয়েন্দা গল্প।

মেয়েটি খিল খিল করে হাসল, বলল, “জানি।” তারপর চোখ নাচিয়ে বলল, আমিও তোমাকে আজ একটা কথা বলতে চাই।” ছেলেটার চোখে মুখে বিস্ময়ের একটা সূক্ষ্ম ছাপ পড়ল, বলল, “তুমিও আমাকে একটা কথা বলবে?”

 

মেয়েটি রহস্যের মতো ডান করে বলল, “তুমি আগে বঙ্গ ছেলেটি কয়েক মুহূর্ত মেয়েটির চোখের দিকে তাকিয়ে রইল, তারপর বলল,“তুমি তাে সবই জান। আমি খুব নিঃসঙ্গ একজন মানুষ । খুবই একাকী একজন মানুষ। আমি যন্ত্রের মতাে কাজ করে যেতাম কেন করতাম নিজেই জানতাম। তােমার সাথে পরিচয় হবার আগে আমার জীবনটা ছিল একঘেয়ে, বৈচিত্র্যহীন, সাদামাটা। মাঝে মাঝে আমার মনে হতাে জীবনটা বুঝি পুরােপুরি অর্থহীন । তোমার সাথে পরিচয় হবার পর হঠাৎ করে সবকিছু অন্যরকম হয়ে উঠল । মনে হতে লাগল আমি যেন

 

রূপকথা নয় সত্যিই আমাদের জীবন টা এখন রুপকথার গল্পের মতো

 

জীবনটার একটা অর্থ খুঁজে পেয়েছি।”মেয়েটি মাথা নাড়ল, হাসি হাসি মুখে বলল, “আমি জানি।”“তুমি এতাে চমৎকার একটি মেয়ে, তােমার মাকে এতাে বিশাল প্রাণশক্তি, তুমি এতাে চঞ্চল হাসিখুশি, শুধু তাই নয়, তুমি বুদ্ধিমান, প্রতিভাবান, সফল, তােমার সাথে আমার মতো একজন মানুষের সম্পর্ক হবার কথা ছিল না। কিন্তু তুমি আমাকে দূরে ঠেলে দাও নি তুমি আমার ঐীবনটাকে পরিপুর্ন করেছ। আমি সেজন্যে তােমার.

 

আরো কিছু জানুন – রূপকথা নয় সত্যিই

 

মেয়েটি কোনাে কথা বলল না, হাসি হাসি মুখে ছেলেটার দিকেতাকিয়েরইল। ছেলেটি এবারে মেয়েটার হাতটা নিজের কাছে টেনে এনে বলল, “তুমি জান আমাদের চারপাশের জগঙ্গা ধীরে ধীরে কঠিন হয়ে উঠছে। তুমি জান এই পৃথিবীতে মানুষের অস্তিত্ব বিপন্ন হয়ে উঠছে । প্রতিদিন শুনছি আমাদের চারপাশে আছে ভয়ংকর রবােমানব, তারা নাকি খুব ধীরে ধীরে আমাদের নিয়ন্ত্রণ নেবার চেষ্টা করছে। তারা নাকি আমাদের মাঝে ঢুকে পড়ার চেষ্টা করছে। যখন তারা আমাদের মূল নেটওয়ার্কটি দখল করে নেবে তখন আমরা নাকি হয়ে যাব দ্বিতীয় প্রজাতি।”

 

ছেলেটার মুখটা হঠাৎ একটু কঠিন হয়ে ওঠে, সে চাপা গলায় বলে,“আমি কিন্তু সেটা বিশ্বাস করি না।” মেয়েটা এবারেও কোনাে কথা বলল না, স্থির দৃষ্টিতে ছেলেটার চোখের দিকে তাকিয়ে রইল। ছেলেটা একটা নিঃশ্বাস ফেলে বলল, “মানব সভ্যতা ছেলেখেলা না। মানুষের জন্যে মানুষের ভালােবাসা দিয়ে হাজার হাজার বছরে এটা ধীরে ধীরে গড়ে উঠেছে । আর কিছু রােবট মানুষের চেহারা নিয়ে মানুষের মাঝে ঢুকে মানুষকে পরাজিত করে তাদের সভ্যতা দখল করে নেবে? অসম্ভব

 

 

এগিয়ে আছি। রবােমানবদের খুঁজে বের করার জন্যে আমাদের আর জটিল লােবােগ্রাফি করতে হবে না, আমি যে পদ্ধতিটা নিয়ে কাজ করছি সেটা ব্যবহার করে আমরা খুব সহজে বােমানবদের বের করে ফেলতে পারব। এর মাঝে। সেটা ব্যবহার শুরু হয়েছে, খুব চমৎক্তার ফল পাওয়া যাচ্ছে । আমার মতাে আরাে অনেকে কাজ করছে, দেখবে আমাদের মানুষদের হারানো খুব কঠিন।” মেয়েটির মুখে এবারে মৃদু একটু হাসি ফুটে উঠল। ছেলেটি একটু অধৈর্য হয়ে বলল, “তুমি আমার কথা বিশ্বাস করছ না। তাই না?” মেয়েটি মাথা নাড়ল, বলল, “করছি।”আমার যদি অনুমতি থাকত তাহলে আমি তােমাকে আমার প্রজেক্টের কথা

 

খুলে বলতাম

 

“তােমাকে বলতে হবে না, আমি জানি।”ছেলেটা অবাক হয়ে বলল, “তুমি জান?”কীভাবে জান মেয়েটি নরম গলায় বলল, “আমি আসলে একজন বােমানব। আমারমওপর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল তােমার কাছ থেকে এই প্রজেক্টের তথ্যগুলাে বের করার ।”ছেলেটা অবিশ্বাসের দৃষ্টিতে মেয়েটির দিকে তাকিয়ে রইল। তাকে দেখে মনে হয় সে কিছু বুঝতে পারছে না। মেয়েটি হাসি হাসি মুখে বলল, “আমি তােমাকে আজকে এই কথাটা বলব ঠিক করে রেখেছিলাম।” ছেলেটি নিষ্পলক দৃষ্টিতে

 

মেয়েটির দিকে তাকিয়ে থাকে। খুব ধীরে ধীরে তার চেহারা থেকে অবিশ্বাসের ছাপটুকু সরে যায়, সেখানে এক ধরনের অবর্ণনীয় আতংকের ছাপ পড়ে। তারপর আতংকের ছাপটুকু সরে সেখানে একটি গভীর বিষাদের ছাপ পড়তে শুরু করে। ছেলেটি খুব ধীরে ধীরে, শোনা যায় না এরকম গলায় বলল, “তুমি একজন রােমান?”

 

সত্যিকারের রববমানব“হ্যা সত্যিকারের রবােমানবআমাদের এতােদিনের যে সম্পর্ক সেগুলাে সব মিথ্যা?”মেয়েটি খিল খিল করে হাসল, বলল, “মিথ্যা কেন হবে? সব সত্যি। আগে যা কিছু ঘটেছে সেগুলােও সত্যি। এখন যেটা ঘটবে সেটাও সত্যি।”এখন কী ঘটবে?” প্রশ্নটা করতে গিয়ে ছেলেটার গলার স্বর একটু কেঁপে উঠল ।

 

 

মেয়েটি একটু হাসল, বলল, “আমি তােমার মাথার খুলিটা কেটে তােমার মস্তিষ্কটা বের করে নেব । আমার ব্যাগে একটা ক্রায়ােজেনিক প্যাকেট আছে,সেটাতে করে নিয়ে যাব । তােমার মস্তিস্কটা নষ্ট হবে না, তার সাথে আমরা একটা ইন্টারফেস তৈরি করব, তারপর আমরা সেখান থেকে তােমার সব তথ্য বের করে নেব।”ছেলেটি হতবাক হয়ে মেয়েটির দিকে তাকিয়ে রইল, কাঁপা গলায় বলল,তুমি এরকম একটা কাজ করতে পারবে?“কেন পারব না? এটা আমার জন্যে খুব সহজ একটা কাজ । তুমি জান আমরা মানুষ না আমরা হচ্ছি রবােমানব। মানুষের যে দুর্বলতাগুলাে আছে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.