শিক্ষা

অলসতা সারা জীবনের কান্না

 

অলসতা

 

অলস হওয়া মানে পরকালীন পরিতাপে ভস্ম হওয়ার আগেই দুনিয়ার অনুতাপে পুড়েমরা। অলসদের ব্যাপারে ইমাম ইবনুল জাওমি বলেন,সমবয়সী বন্ধুরা জ্ঞানে ও বিজ্ঞানে অগ্রগামী হয় আর সে থাকে চূড়ান্ত আহিল। তারাস্বচ্ছলতার পারদ ছুঁয়েছে সেই কবে, অথচ সে আজও রিক্তহস্ত ফকির। এরপরও কি অলসতার মাধ্যমে আনন্দ-আয়েশ করার কোনও অর্থ থাকে?

অলসতা মূলত অসীম মুনাফা ও অফুরন্ত অবসর হাতছাড়া করে ফেলার নাম। ইমামআবুল ফাতাহ বুসতি (রহিমাহুল্লাহ) বলেন, ‘বন্ধু! কখনও কি শুনেছ যে, অলসতারঝুলি থেকে কেউ এক ফোঁটা মধুও আহরণ করতে পেরেছে?’

যেন তিনি অকর্মণ্য মানুষদের প্রতি তপ্ত আহ্বানে বলছেন: “শোনো! অলসতার থালাহাতে ডিক্ষে করে বেড়ালে সাফল্য কেনার সামর্থ্য কখনও হবে না। দিনশেষে লাঞ্ছনাই জুটবে কপালে।”

অলসতা ছেড়ে গা ঝাড়া দিতে পারলেই জীবনে আসে সমূহ বারাকাহ। মানব জীবনেরবিভিন্ন ক্ষেত্রে এর অসংখ্য প্রমাণ পাওয়া যায়। দাবা খেলাতেও রয়েছে এর দারুণ উদাহরণ। ইমাম ইবনুল কাইয়িম (রহিমাহুল্লাহ) বলেন, দাবা খেলায় সৈনিকের গতি বড় ধীর। কিন্তু একবার শেষ ঘরে পৌঁছতে পারলে সে

অলস্তার ক্ষতি একাই সব হিসেব এলোমেলো করে দেয়। সৈনা সর্বশেষ ঘরে পৌঁছে গেলে মন্ত্রীর মর্যাদা পেয়ে যায়। উদ্যম, কর্মঠতা,মনোবলএবং আত্মবিশ্বাসের এ এক দুর্দান্ত উপমা। বেশি পরিশ্রম করতে পারেন না? সমস্যা নেই। শুধু অলসতা ছেড়ে দিন। স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি পরিশ্রম না করেও ভরপুর বারাকাহ পাবেন।কিন্তু সকাল-বিকাল শুধু অলসতা আর বিলাসিতার চাদরমুক্তি দিয়ে বসে থাকলে জীবনযুদ্ধে পরাজয়ের সুসংবাদ নিন। বেশকিছু জরিপ থেকে জানা যায় যে, পৃথিবীর অধিকাংশ কোটিপতি নিজ চেষ্টায় ধনী হয়েছেন, উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত টাকায় নয়।

 

 

 

আমার এত দুঃখ কেন

 

এদের সবারই সূচনা হয়েছিল একেবারে
শূন্য থেকে  আর বংশ পরম্পরায় ধনীদের শতকরা ৯০ জনই খুব দ্রুত সে সম্পাদ নিঃশেষ করে ফেলে। আর শতকরা মাত্র ৫ জন বাপ-দাদা থেকে প্রাপ্ত সম্পদের সঠিক সংরক্ষণ করতে পারে।আয়তনে ছোট ও খনিজ আয়ে সীমিত হবার প্রও জপান বর্তমান বিশ্ব অর্থনীতির
ব্রিাট অংশ নিজেদের আয়ত্তে নিয়ে নিয়েছে। মুসলিম অধ্যুষিত রাষ্ট্রগুলোকে আল্লাহ,

তাআল দিয়েছেন বিপুল জনবঙ্গ ও সীমাহীন প্রাকৃতিক সমৃদ্ধি। অথচ মনোবল ও ইচ্ছাশক্তির অভাব এবং ফাঁপা অহংকারের ফলে আজ ব্যর্থতা তাদের চিরসঙ্গী। তাদের নামের সাথে জুড়ে গেছে ‘পশ্চাৎপদ’ বিশেষণ প্রতিটি জাতির কিংবা গোত্রের পতনের শুরু অলসতা থেকেই। বারামিকা সম্প্রদায়ের সাম্রাজ্য পতনের কারণ হিসেবে তাদের অনেকেই বলে, ‘সকালের ঘুম আর সাঁঝের মদ। দুই: ইবাদাতের বিপদ আবদুল্লাহ ইবনু আব্বাস (রদিয়াল্লাহু আনহুমা) বলেন, ‘প্রতিটি বস্তুরই বিপদ রয়েছে।জ্ঞানের বিপদ হলো ভুলে যাওয়া। আর ইবাদাতের বিপদ অলসতা।
[১৫] ইবনুল কাইয়িম, আল-ফাওয়াহিদ, ৪৫।
[১৯] মুহাম্মাদ ইবনু কাসিম আমাসি হানাফি, রাও-আইয়ার অপ মূনৃভাষাৰ মিন বিয়িল আনবার,

 

অলসতা: জীবনের শত্রু

 

• রমাদান মাস এলে মানুষ পাল্লা দিয়ে ইবাদাত করতে থাকে। কিন্তু রমান বিদায়নেবার পরপরই চূড়া থেকে একেবারে খাদে গিয়ে পড়ে।
• হাজ্জ বা উমরা সেরে মানুষ তার রবের সাথে একগাদা ওয়াদা করে বাড়ি ফেরে।কিন্তু সময়ের পরিক্রমায় সেসব প্রতিজ্ঞা ধূলিকণার মতো উড়ে যায়। ইবাদাতে সেআবার অলস হয়ে পড়ে।• কেউ কুরআন হিফজ করার নিয়ত করল। দু’এক মাস ধারাবাহিক চেষ্টার পর কমেআসতে থাকে গতি। আস্তে আস্তে আগে যা শিখেছিল, তা-ও ভুলে বসে। নতুনকরে আবার শুরু করার কথা ভাবতেও তখন ক্লান্তি লাগে। লক্ষ্য পূরণ তো অনেক দূরে!

অলসতা অভ্যাসে পরিণত হলে ধীরে ধীরে ইবাদাত তার প্রাণ হারিয়ে ফেলে। দৈহিক মৃত্যুর আগেই মারা যায় ‘আল্লাহর বান্দা’ নামক সত্তাটি৷ইমাম যমাখশারি (রহিমাহুল্লাহ) ‘রবীউল আবরার’ গ্রন্থে বলেন, ‘ইবাদাত ব্যক্তির উপর যতটা ভারী, আমলনামায়ও ঠিক ততটাই ভারী। আর অলসতা ব্যক্তির জন্যমযতটা হালকা, আমলনামায়ও তা ততটাই হালকা

তিন: শয়তানের বিরুদ্ধে পরাজয়প্রতিপক্ষ সবচেয়ে দুর্বল থাকে ঘুমন্ত অবস্থায়। মানবজাতির চিরশত্রুশয়তানওআক্রমণের জন্য এ সময়টাকে বেছে নেয়।রাসুলুল্লাহ (সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেন, “এ সময়ে সে বান্দার নাকের্ছিদ্রপথের গভীরে গিয়ে তিনটা গিঁট দিয়ে দেয়।

(১)মানুষের সারা দিনের আলস্য বা কর্মোদ্যম এই তিন গিঁটের চক্রে নির্ণীত হয়। ফজরেরবেলায় বা ঋনিক পূর্বে বান্দা বিছানা ছেড়ে দাঁড়াতেই হন্তদন্ত করে পালিয়ে যায়শয়তান। সাথেসাথে তিন গিঁটের একটি খুলে যায় এবং বান্দার গা থেকে সে পরিমাণআলস্যও ঝরে পড়ে। বান্দা উঠে গিয়ে ওজু সেরে নিলে দ্বিতীয় গিঁটটিও আলগা হয়েআসে। শরীরে আসে ছিঙগ উদ্যম। ফজরের সালাত পড়ে নিলে আরও এক ধাপএগোয় শত্রুর বিরুদ্ধে তার জয়যাত্রা। তখন তৃতীয় এবং সর্বশেষ গিঁটটিও খসে পড়ে।

[১৮] যামাখশারি, রবীউল আবরার ওয়া নুসুসুম আখইয়ার
[১৯] হাদীসে বর্ণিত আছে, ‘ঘুম থেকে ওঠার পর ওজু করে ভালোভাবে তিনবার নাকে পানি দিয়ো। কারণ, শয়তান নাকের ছিদ্রপথে রাত্রিযাপন করা।

Related Posts

আমার এত দুঃখ কেন

      আমার এত দুঃখ কেন     মাঝে মাঝে ভীষণ কষ্ট লাগে। বুকের ভেতরে বাসা বাঁধে দুঃখের কালো মেঘ। অবিরামবৃষ্টিরধারার মতো বিষণ্ণতা এসে আছড়ে পড়ে মনের…

সুখ দুঃখের সংসার

প্রতিটি মানুষের জীবনের দুটো গল্প থাকে   , একটা সুখের, একটা দুঃখের,আমরা শুধু দুঃখটাকেই মনে রাখি,সবসময় না পাওয়া জিনিসগুলো নিয়ে পড়ে থাকি, এটা থেকেই ডিপ্রেশন নামক ভয়ংকর রোগটা…

প্রতিবন্ধীদের সুযোগ করে দেওয়া উচিত

  প্রতিবন্ধীদের সুযোগ করে দেওয়া উচিত   আমার খবরের চ্যানেল যারা আছেন তাদেরকে বলছি-দয়া করে আমার কথাগুলোতে কষ্ট পাবেন না- আপনাদের অনেককেই দেখি আপনারা প্রায়ই মজার ছলে,হাসির ছলে…

কক্সবাজার  ভ্রমণ ২০২১

  কক্সবাজার  ভ্রমণ   নভেম্বরের ২৩ তারিখে বন্ধুরা মিলে আড্ডা দেওয়ার সময় কথা উঠলো কক্সবাজারের – সেন্ট মার্টিন।তারিখ ও ঠিক করে ফেললাম ৫ ই ডিসেম্বর। কথা অনুযায়ী ট্রেনে…

ছােট অভ্যাস বড় সাফল্য

আমার গল্প     স্কুলজীবনের শেষদিনে সােফমাের উচ্চ বিদ্যালয়ে, একটি বেসবল ব্যাটের দ্বারাআঘাতপ্রাপ্ত হয়েছিলাম আমি। আমার বন্ধু একটি ফুলসুইং বলকে পুরোদমে মারতেচেয়েছিল। হঠাৎ ব্যাটটি তার হাত থেকে পিছলে…

মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তির ব্যবহার

    তথ্য মাধ্যমে চাকরি বিজ্ঞাপন বিশ্লেষণ এবং একটি প্রতিবেদন প্রস্তুত   চাকরির ধরন ও প্রশিক্ষণ, দক্ষতা, প্রয়ােজনীয় অভিজ্ঞতাপত্রপত্রিকায় তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক চাকরির বিজ্ঞাপন সাধারণত ইংরেজিতেই প্রকাশিত হয়েথাকে। তাই…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *